Logo
সংবাদ শিরোনাম :
কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিজয়ী হলেন যারা টানা বর্ষনে কমলগঞ্জে বন্যা :: বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত :: ব্যাপক ক্ষতি মণিপুরীদের ঐতিহাসিক ‘চহি তারেৎ খুনতাকপা’ দিবস উদযাপন প্রেসক্লাব সভাপতির পুত্র শৈবালে‘র ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি লাভ কমলগঞ্জে বোরো চাষের জন্য কৃষকের উদ্যোগে ক্রসবাঁধ নির্মাণ সিপিএসটি-২০ প্রাইজমানি ক্রিকেট টুর্ণামেন্টে হবিগঞ্জ চ্যাম্পিয়ন কিশোরকণ্ঠ মেধাবৃত্তি পরীক্ষা ২০২৩ এর ফল প্রকাশ কমলগঞ্জে ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক রসুলপুরে নৌকার নির্বাচনী মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত আম্বিয়া কিন্ডারগার্টেন স্কুলে অভিভাবক দিবস পালন। কমলগঞ্জে পূর্ব শক্রতার জের ধরে হামলা; ৩ জনকে আটক করে গণপিটুনি মৌলভীবাজারে তৃণমূল পর্যায়ে সরকারি সেবার মানোন্নয়নে গণশুনানি বড়দিন উৎসবকে ঘিরে কমলগঞ্জের ৪৪টি গির্জায় চলছে প্রস্তুতি সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল মছব্বির স্মরণে আলোচনা সভা কমলগঞ্জে ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা পুলিশ এসল্ট মামলায় কমলগঞ্জে যুবদল নেতা পৌর কাউন্সিলর গ্রেপ্তার কমলগঞ্জে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে হামলা ও লুটপাটের অভিযোগ মৌলভীবাজারের ৪টি আসনে প্রতীক বরাদ্দের পর প্রচারণায় প্রার্থীরা দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনে মৌলভীবাজারের ৪টি আসনে প্রতিদ্বন্ধিতা করবেন ২০ জন প্রার্থী কমলগঞ্জে যুব ফোরাম গঠন

করোনার কারণে মৌলভীবাজারের পর্যটন শিল্পে ধস

রিপোটার : / ৬৬৭ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশিত : শনিবার, ২০ জুন, ২০২০

কমলকন্ঠ রিপোর্ট ।।

মৌলভীবাজার জেলায় সারা বছর পর্যটকদের আনাগোনা থাকলেও ঈদ এবং শীতে প্রচুর পর্যটক বেড়াতে আসেন। প্রতি বছর ঈদের ছুটিতে এ জেলার কমলগঞ্জ ও শ্রীমঙ্গলে রীতিমতো ঢল নামে পর্যটকদের।

ঈদের ১০-১৫ দিন আগে থেকেই বুকিং হয়ে যায় প্রতিটি হোটেল-রিসোর্ট। ঈদের ছুটিতে মৌলভীবাজারের চা বাগানগুলোসহ কমলগঞ্জ উপজেলার লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান, মাধবপুর লেক, হামহাম জলপ্রপাত, বীরশ্রেষ্ট হামিদুর রহমান স্মৃতি কমপ্রেক্স, মনিপুরী পাড়ায় এবং শ্রীমঙ্গলের বিভিন্ন চা-বাগান ও বাইক্কাবিল, কুলাউড়ার কালাপাহাড় ও হাকালুকি হাওরে অসংখ্য পর্যটকরা বেড়াতে আসেন। মৌলভীবাজার জেলার মাধবকুন্ড ও হামহাম জলপ্রপাত আর লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক পর্যটক ঘুরতে আসেন প্রতিবছর। কিন্তু প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের কারণে এবার পর্যটন খাতে ধস নেমেছে। লকডাউন থাকায় এ বছর মৌলভীবাজারসহ সারা দেশের হোটেল-রিসোর্টে নেই পর্যটক। উল্টো দীর্ঘদিন পর্যটকের আগমন বন্ধ থাকায় ঝুঁকিতে পড়েছে পর্যটন শিল্প। কর্মচারীদের বেতন দিতে হিমশিম খাচ্ছেন মালিকরা।

হোটেল-রিসোর্ট ব্যবসায়ীরা বলছেন বছরের এই সময়টায় আমাদের সবচেয়ে বেশি আয় হয়। দেশে নানা প্রান্ত এমনকি অনেক বিদেশী নাগরিক ও ঘুরতে আসেন মৌলভীবাজারের । আর এতে করে তাদের হোটেলের প্রতিটা রুম ঈদের সপ্তাহ-দশদিন আগে থেকেই বুকিং হয়ে যেত। তবে এবার করোনার এই সংকটকালীন সময়ে হোটেলগুলোতে সেই আমেজ নেই। হোটেল-রিসোর্ট বন্ধ থাকলেও গত মার্চ মাস থেকে কর্মচারীদের বেতন বাড়িতে পাঠাতে হচ্ছে। আর কতদিন এভাবে চলবে কিছুই ঠিক করে বলা যাচ্ছে না। তাই সরকারি সহায়তা না আসলে আমরা বড় বিপদে পড়ব।’করোনার কারণে র্দীঘদিন ধরে হোটেল – রিসোর্ট বন্ধ রয়েছে তাই পুঁজি হারানোর ভয়ে আছেন মালিকরা।

শ্রীমঙ্গলের শান্তিবাড়ি রিসোর্টের স্বত্তাধিকারী তানভীরুল আরেফিন লিংকন বলেন, ঈদকে ঘিরে আমাদের নানা রকমের পরিকল্পনা থাকতো। আর ঈদ মৌসুমে আমাদের ব্যবস্যাও সবচেয়ে বেশি হত। তবে এবার এক ভিন্ন পরিস্থিতি। 

তিনি আরও বলেন, ‘মার্চ মাসের ১৭ তারিখে আমরা রিসোর্ট বন্ধ করি। তবে বন্ধ করলেও রিসোর্টের রক্ষণাবেক্ষনের জন্য কর্মচারী রাখতে হয়। এছাড়া আমাদের সব কর্মীদের কোনভাবে বেতন দিয়ে যাচ্ছি। এখন সরকারি সহায়তা ছাড়া এবিপদ থেকে আমরা বের হতে পারবো না। আমাদের অন্তত ৬ মাসের মূলধন দিয়ে টিকিয়ে রাখতে হবে।’


আরো সংবাদ পড়ুন...
Developed By Radwan Ahmed